গরমে পারফিউম পছন্দে করণীয়

ঘামের বাজে গন্ধটা নাকে আসতেই চোখমুখ কুঁচকে যায়। ভদ্রতা করে মনে মনে ভাবেন, ‘একটু পারফিউম দিয়ে এলে কী এমন ক্ষতি হতো!’ প্রচণ্ড গরমে ঘামের কারণে সেই সুগন্ধ এখন অনেকটাই দুর্গন্ধে পরিণত হয়েছে।

গরমের এই সময়টাতে পারফিউম ব্যবহারের প্রবণতা বেড়ে যায়। কিন্তু লাগানোর জায়গা ও কায়দা ভুল হওয়ায় সুগন্ধি বেশিক্ষণ থাকে না।

ইংরেজিতে পারফিউম, ফরাসিতে পাফাম, বাংলায় পরিচিত সুগন্ধি নামে। লাতিন শব্দ পারফিউমাস থেকে পারফিউম শব্দটি এসেছে। প্রাচীন মেসোপটেমিয়া ও মিসরে সুগন্ধি তৈরির প্রক্রিয়া শুরু হয়। পরে রোমান ও পারসিয়ানরা সুগন্ধি বানানোর প্রক্রিয়া আরও আধুনিক করে তোলে। কবে কোথায় এর উৎপত্তি, এ নিয়ে আছে বিতর্ক।

উৎপত্তিস্থল হিসেবে মেসোপটেমিয়ার নামই পাওয়া যায় বেশি। বিশ্বের প্রথম নারী রসায়নবিদ তাপ্পুতীর কথা রয়েছে সুগন্ধির বিভিন্ন ইতিহাসে। তিনি মেসোপটেমিয়ায় ফুল, তেল, গাছের বিভিন্ন অংশ ব্যবহার করে তৈরি করতেন সুগন্ধি। চার হাজার বছর আগে প্রতিষ্ঠিত সুগন্ধির কারখানার সন্ধানও পাওয়া গেছে সাইপ্রাসে। সেখানে ফল ও ফুলের ব্যবহার করা হতো সুঘ্রাণ তৈরিতে।


রমে সতেজ ও তরতাজা থাকতে সুগন্ধি ব্যবহারের বিকল্প নেই। ঘামের গন্ধ আপনাকে এবং অন্যকে বিড়ম্বনায় না ফেলে সে জন্যও বাড়তি সুবিধা দেবে সুগন্ধি। এ জন্য এই গরমে পারফিউম, বডি স্প্রে ব্যবহারও বেড়ে যায় বহু গুণ। অনেকের আবার শুধু সুগন্ধির প্রতিই বাড়তি ভালোলাগা কাজ করে।

ব্রিটিশ পারফিউম বিশেষজ্ঞ রুথ মাসটেনব্রোয়েক গবেষণা করে শরীরের নির্দিষ্ট কিছু জায়গার কথা বলেছেন। যেসব জায়গায় পারফিউম লাগালে সেটা সারা দিন সুরভিত করে রাখে। তবে এর বাইরেও টুকটাক কিছু ‘কারসাজি’ আছে। পদ্ধতিগুলো অনুসরণে অতিরিক্ত পারফিউম ব্যবহার করতে হবে না। বরং অল্প পরিমাণ পারফিউম দিয়েই সুরভিত থাকবেন অনেকক্ষণ।

কিছু কিছু পারফিউম নির্দিষ্টভাবে ব্যবহার করা হয় রাত ও দিনের জন্য। দিনের বেলায় তুলনামূলক ভারী সুগন্ধিগুলো ব্যবহারের পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। রাতের বেলায় হালকা। কারণ, দিনের বেলায় অনেকটা সময় ধরে সুগন্ধির প্রয়োজন।

গোসলের পরপরই ব্যবহার করুন সুগন্ধী। গোসলের সময় রোমকূপগুলো খুলে যায়। এ কারণে গোসলের পরপরই পারফিউম ব্যবহার করা হলে রোমকূপগুলো সুগন্ধ অনেকাংশেই টেনে নেয়। সুগন্ধি এ কারণে অনেকক্ষণ ধরে থেকে যায়।

ময়েশ্চারাইজার করে নিন পারফিউম দেওয়ার আগে হাতে পায়ে ময়েশ্চারাইজার দিয়ে নিন। কারণটা হলো, ত্বক খসখসে থাকার বদলে যদি মসৃণ আর নরম থাকে, তাহলে পারফিউম নিজের মধ্যে টেনে নেয় অনেকক্ষণের জন্য।

দিনের বেলায় সুগন্ধি ভেষজ, সাইট্রাস, ফুলেল সৌরভ সারা দিনের জন্য হালকা, সতেজ অনুভূতি এনে দেবে। ও ডি পারফিউম ব্যস্ত দিনের জন্য। শ্যানেলের কোকো ম্যাডমোয়াজেল ও ডি পারফিউম, টম ফোর্ডের ব্ল্যাক অর্কিড, ল্যানকমের লা ভিয়ে এস্ট বেল, ভিক্টোরিয়া’স সিক্রেটের বম্ব শেল ও ডি পারফিউম, গুচ্চির ব্লুম, বারবারি ও ডি পারফিউম, জেসিকা সিম্পসনের ফ্যান্সি লাভ ও ডি পারফিউম, ভারসাচের ব্রাইট ক্রিস্টাল আবসলু, , ক্লোয়ি নোমাড, ডলচে অ্যান্ড গাবানার ডলচে প্রভৃতি সুগন্ধি দিনের জন্য আদর্শ।

কোথায় পাবেন

রাজধানীর বড় বড় শপিং সেন্টার, কসমেটিকসের শোরুম ও সুপার শপগুলোতে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের পারফিউম, বডি স্প্রে কিনতে পাবেন। এ ছাড়া বিভিন্ন মার্কেটের কসমেটিকসের দোকান ও ষ্টেশনারী দোকানেও মিলবে সুগন্ধি পণ্য। পারফিউম ওয়ার্ল্ডের শো রুমেও পাওয়া যাবে পছন্দের সুগন্ধি। সুগন্ধি কেনার সময় ভালোমতো দেখে নিন। ভালো ব্র্যান্ডই শুধু নয়, ভালো দোকান থেকে সুগন্ধি কিনুন।

ভালো মানের সুগন্ধিগুলোর বক্স অনেক শক্ত হয়। রং দেখে প্রতারিত হবেন না। বড় ব্র্যান্ডগুলো সাধারণত হালকা রঙের সুগন্ধি বানিয়ে থাকেন। প্রথমবার স্প্রে করার পর গন্ধটা যদি ১৫ ঘণ্টার বেশি টিকে যায় তবেই সেটা আসল সুগন্ধি। কেনার পর স্বাভাবিক তাপমাত্রায় রেখে দিন। সুগন্ধির রং যদি বদলে যেতে থাকে এবং ব্যবহারের পর ত্বক জ্বালাপোড়া করে তবে সেটি ব্যবহার করা যাবে না।   

কেমন দাম

পারফিউম, বডি স্প্রে মান ভেদে বিভিন্ন রকমের হয়ে থাকে। ছেলেদের পারফিউম ও বডি স্প্রের দাম পড়বে ৩০০ থেকে তিন হাজার টাকা। মেয়েদের জন্যও বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সুগন্ধি পাওয়া যায়। এগুলোর দাম পড়বে ৩০০ থেকে চার হাজার টাকার মধ্যে। এর বাইরেও উচ্চ মূল্যের নামি ব্র্যান্ডের কিছু পারফিউম পাবেন।

এসব পারফিউমের দাম চার হাজার টাকা থেকে শুরু হয়ে তিরিশ হাজার পর্যন্ত হতে পরে। ভালো মানের পারফিউমের জন্য যেতে হবে বসুন্ধরা সিটি শপিং মল ও যমুনা ফিউচার পার্ক শপিং মলে।

মন্তব্য লিখুন :