একা থাকুন, ভালো থাকুন

সবাই সুখী হতে চায়। সামান্য সুখের আশায় মানুষ দিনরাত পরিশ্রম করে। অনেকে ভাবেন যারা একাকী জীবন-যাপন করেন তারা দুঃখী, প্রেম করেই সুখী থাকা যায়। তবে একটু চেষ্টা করলেই একাকীত্ব জীবনেও সুখী হওয়া যায়। 

হ্যাঁ, এখনকার সময়ে একা মানুষরা বেশি সুখী। একা থাকার কিছু সুবিধা সমূহঃ 

১. স্বাধীনতা - একা থাকার প্রথম এবং প্রধান সুবিধা হলো স্বাধীনতা। যেভাবে খুশি বাঁচো, যা খুশি করো, কেউ বাধা দেবার নেই, কেউ খবরদারি করার নেই। জীবনটা বাতাসের মতো স্বাধীন, ঝড়ের মতো দুর্বার।

২. নিজেকে চেনা - একা থাকলে নিজেকে চেনা অনেক সহজ হয়। নিজের সবলতা, দুর্বলতা এইগুলোর সম্পর্কে সম্যক ধারণা পাওয়া যায়। আর জীবনে সামনে এগিয়ে যাওয়ার জন্য এই নিজেকে চেনার কোন বিকল্প নেই।

৩. মুক্তচিন্তার প্রসার - মুক্তচিন্তা কিংবা মুক্তবুদ্ধি চর্চার জন্য যে মানসিক শান্তির দরকার একাকীত্ব আপনাকে সেই শান্তির সন্ধান দিতে সক্ষম। মুক্তচিন্তা ব্যতীত কোন জাতির বিকাশ কিংবা উন্নতি কোনোটাই সম্ভব না।

৪. পরনির্ভরশীলতা থেকে মুক্তি লাভ - একা থাকা মানুষকে বাধ্য করে নিজের কাজ নিজেকে করতে বা শিখতে। এতে করে যেমন পরনির্ভরশীলতা কমে, ঠিক তেমনি নিজের কাজ নিজে করার ফলে নিজের প্রতি সম্মানটাও বাড়ে।

৫. নিজের জন্য যথেষ্ট সময় থাকা - যান্ত্রিক জীবনে যখন নিজের জন্য কিছুটা সময় করে নেয়া খুবই মুশকিল হয়ে যায়, তখন একা থাকা আপনাকে দিতে পারে নিজের জন্য মহামূল্যবান কিছু অমূল্য সময়। সেই সময়ে আপনি চাইলে অনেক কিছুই করতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ - বই পড়া, সিনেমা দেখা, দেশ বিদেশের বিভিন্ন তথ্য জানা, শিল্প সংস্কৃতির বিভিন্ন পরিসরে ঘুরে আসা ইত্যাদি মানসিক বোধ সম্পন্ন কাজের পিছনে সময় ব্যয় করা।

এছাড়াও নিজেকে জানার জন্য হলেও একা থাকার দরকার। 

নিজের জীবনকে ভালোবাসুন: অন্যদের সঙ্গে তুলনা না করে, নিজের জীবনকে ভালোবাসুন। নিজের জীবনে যা ঘটছে তা উপভোগ করুন, কাছের মানুষগুলোকে চিনুন। আপনার জীবন সুন্দর করে তোলার দায়িত্ব আপনারই।

নিজেকে ভালোবাসুন: কোনও সম্পর্কে ভালবাসা খোঁজার আগে প্রয়োজন নিজেকে ভালবাসা। নিজেকে চিনুন, নিজের প্রয়োজন বুঝুন, নিজেকে ভালবাসুন। নিজের পছন্দ, নিজের ভালোলাগা গুরুত্ব দিন। নিজের সঙ্গে সময় কাটান। কোনও বিশেষ ভালবাসার মানুষ জীবনে নেই বলে দুঃখ করে বসে থাকবেন না, কিংবা কারও অপেক্ষায় থাকবেন না। বন্ধুত্ব করুন, জীবনে ভালো বন্ধু প্রয়োজন।

নিজের চাহিদা সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা: অনেকেরই নিজের জীবন সম্পর্কে, চাহিদা সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা থাকে না। নিজে কি চান জীবনে তা বুঝে উঠতে পারেন না। ঠিক কি চান সে সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা তৈরি করুন।

নিজের ওপর ভরসা রাখুন: কোন কিছু করতে ভয় পাবেন না। মনের কথা শুনুন, সাহস করে কাজ করুন। নিজের ওপর ভরসা এবং বিশ্বাস রাখুন।

নিজে যা চাইছেন তাই করুন: অনেকেই আমাদের জীবনে কি করা উচিত, কি করা উচিত না, তা নিয়ে অনেক কিছু বলতে থাকেন। নিজের জীবনে যা চান, তাই করুন। এতেই খুশি থাকবেন।

নিজের ভেতরে খুশি খোঁজার চেষ্টা করুন: যদি নিজেকে খুশি রাখতে না পারেন, নিজের মধ্যে শান্তি খুঁজে নিতে না পারেন, তাহলে পারিপার্শ্বিক কোন কিছুই আপনাকে আনন্দে রাখতে পারবে না। তাই নিজেকে সময় দিন, নিজের অন্তরে আনন্দ খুঁজে পাওয়ার চেষ্টা করুন।

স্বপ্ন দেখুন, লক্ষ্য স্থির করুন: অনেকেই অন্যদের কথা শুনে ভাবতে শুরু করেন, তাদের জীবনে কিছুই নেই। স্বপ্ন দেখুন, জীবনের লক্ষ্য তৈরি করুন। এতে জীবনের প্রতি ইতিবাচক মনোভাব তৈরি হবে।

কৃতজ্ঞতা: একাকীত্ব নিয়ে, অন্যদের জীবনে কি রয়েছে, আপনার কীসের অভাব তা নিয়ে না ভেবে, জীবনে কি কি পেয়েছেন, একা থাকার জন্য কি কি সুবিধা হয়েছে আপনার, তা ভাবুন। এতে জীবনের প্রতি কৃতজ্ঞতা বাড়বে।


মন্তব্য লিখুন :