দ. আফ্রিকাকে হারিয়ে আয়ারল্যান্ডের ইতিহাস

প্রথম ম্যাচ বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত। ডাবলিনে দ্বিতীয় ম্যাচে পুরোদস্তুর ইতিহাসই গড়ল আয়ারল্যান্ড। চমক দেখিয়ে হারিয়ে দিলো দক্ষিণ আফ্রিকাকে। দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে আইরিশরা জিতেছে ৪৩ রানে।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে আয়ারল্যান্ডের এটিই প্রথম জয়। এখন পর্যন্ত দুই দল মুখোমুখি হয়েছে ৭ ওয়ানডেতে। অন্য কোনো সংস্করণে এখনো দেখা হয়নি তাদের। এই জয়ে আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ সুপার লিগে ১০ পয়েন্ট পেল আয়ারল্যান্ড।

আগে ব্যাট করতে নেমে বালবার্নির ১০২ রান ও টেক্টরের ৭৯ রানের সৌজন্যে ২৯০ রানের পুঁজি পায় আয়ারল্যান্ড। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে এটাই দলটির সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড। জবাবে ইয়ানেমান মালানের ৮৪ ও রাসি ফন ডার ডাসেনের সঙ্গে তার শতরানের জুটিতে শক্ত ভিত পেয়েও দক্ষিণ আফ্রিকা গুটিয়ে যায় ২৪৭ রানে। ২৯০ রানের ওপর রান তাড়ায় টানা ১০ ম্যাচ হারল দক্ষিণ আফ্রিকা। ২০১৬ সালের পর এই রান তাড়া করে জয় নেই তাদের।

জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে সর্বোচ্চ ৮৪ রানের ইনিংস খেলেন জানেমান মালান। ওপেনার মারক্রাম (৫) ও অধিনায়ক বাভুমা (১০) পারেননি থিতু হতে। ভ্যান ডার ডসন এক রানের জন্য পাননি ফিফটি (৪৯)।

জয়ের জন্য দায়িত্ব নিতে হতো মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানদের, কিন্তু পারেননি তারা। মিলার ২৪ রান করলেও ভেরিয়েন, পেহলুকওয়ে, মাহারাজরা দাড়াতে পারেননি। ৪৮.৩ ওভারে ২৪৭ রানে গুটিয়ে যায় প্রোটিয়াদের ইনিংস। বল হাতে আয়ারল্যান্ডের হয়ে মার্ক এইডার, জস লিটল ও ম্যাকব্রিন দুটি করে, ক্রেইগ ইয়ং, সিমি সিং ও ডকরেল একটি করে উইকেট নেন।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে আয়ারল্যান্ডের হয়ে টপ অর্ডারের প্রায় সবাই রান পেয়েছেন। অধিনায়ক অ্যান্ডি বালবার্নি হাকান ওয়ানডে ক্যারিয়ারের সপ্তম শতক। ১১৭ বলে ১০২ রান করে তিনি রাবাদার শিকার। হ্যারি টেক্টর করেন ৭৯ রান। ওপেনার পল স্টারলিং ২৭ ও ডকরেল ৪৫ রান করেন।

আগামী বৃহস্পতিবার ডাবলিনেই সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে লড়বে দুই দল।

মন্তব্য লিখুন :